MATS

Starts from:Sat, February 16, 2019
Campus Location

৪২/২, বাউন্ডারী রোড (পুরাতন ফুলবাড়ীয়া বাস স্ট্যান্ড, প্রানী হাসপাতালের বিপরীতে),ময়মনসিংহ,Bangladesh

Class Description

মেডিকেল এ্যাসিষ্ট্যান্ট ট্রেনিং কি এবং কেন?

Medical Assistant Training School (MATS) হলো গ্রাম বাংলার জনগনের সাস্থ্য  ও পরিবার পরিকল্পনার সেবার লক্ষ্য নিয়ে- ১৯৭৬ সালে সরকার প্রথম মধ্যম মানের চিকিৎসক তৈরীর উদ্দেশ্যে ৩ বৎসর মেয়াদী বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ ডিপ্লোমা কোর্স চালু করে। এই কোর্সের নাম Medical Assistant Training Course. যা State Medical Faculty থেকে এই ডিপ্লোমা প্রাপ্ত চিকিৎসকগন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল কর্তৃক রেজিষ্ট্রেশন/লাইসেন্স প্রাপ্ত মধ্যম মানের চিকিৎসক। বাংলাদেশের ৬৮,০০০ হাজার গ্রামের প্রায় ১৫ কোটি মানুষের সাস্থ্য  সেবা দেয়ার জন্যই মূলত এই চিকিৎসা শ্রেণী তৈরী হয়। ১৯৭৬ সালে কোর্স চালু হলে পরবর্তীতে ১৯৭৯ সাল থেকে গ্রাম/ইউনিয়ন এবং উপজেলা-লেভেলে নিয়োগ প্রাপ্ত মেডিকেল এ্যাসিষ্ট্যান্টগন গ্রাম বাংলার মানুষের চিকিৎসা সেবা তথা সাস্থ্য সেবা দিয়ে আসছে। মানুষের যে কোন সাস্থ্য  সম্পর্কিত সমস্যার কারনে বহু উচ্চ ডিগ্রি প্রাপ্ত ডাক্তার রয়েছেন যারা বেশীর ভাগই শহরাঞ্চলে বসবাস করেন। ফলে গ্র্রামের মানুষ তাদের সাস্থ্য  সমস্যায় প্রাথমিক যে ডাক্তারদের সহযোগীতা পায় তারা হল এই বিশেষ ট্রেনিং প্রাপ্ত ডিপ্লোমা ডাক্তার। মেডিকেল এ্যাসিষ্ট্যান্ট ট্রেনিং কোর্সধারী ডাক্তার গ্রামের মানুষের কাছে আজ তাদের পরিচিতির প্রয়োজনীয়তা বিশেষ ভাবে লক্ষনীয়। তাদের সেবায় মানুষ সন্তুষ্ট। Medical Assistant Training Course সম্পন্নকারীগনকে সরকার Diploma of Medical Faculty (DMF) ডিগ্রি দিয়ে থাকে। সরকারী পর্যায়ে MATS কোর্স  চালু করার জন্য প্রথমে ৮টি প্রতিষ্ঠান খোলা হয় । পরবর্তীতে বৃদ্ধি করে ১৮টি করা হয় এবং তাহা পরবর্তীতে কমিয়ে ৭টি প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এই শিক্ষা প্রদান করা হচ্ছে। যাহা সমাজের চাহিদার তুলনায় খুবই কম। বিধায় সরকার উক্ত শিক্ষা ব্যবস্থা বেসরকারী পর্যায়ে শুরু করার অনুমোদন দিয়েছেন তাই SAIC Group of Medical Institutions এর পক্ষ থেকে ২০০৮-০৯ শিক্ষাবর্ষে ৫টি ক্যাম্পাসে শুরু করা হয়েছে Medical Assistant Training Course

RIMT MATS কেন পড়বেন?

  • আন্তর্জাতিক মান সম্পন্ন অন্যতম প্রাইভেট ম্যাট্স।
  • অভিজ্ঞ শিক্ষক দ্বারা এমন ভাবে পাঠদান করা হয় যে, কোন প্রকার গৃহ শিক্ষকের প্রয়োজন নেই।
  • প্রতিষ্ঠানটিতে ১০০% ব্যবহারিক ক্লাশ করার নিশ্চয়তা রয়েছে।
  • সরকারী নাম করা হাসপাতালে ৪র্থ বর্ষ থেকে ইন্টার্নী করার সুবিধা।
  • ১০ হাজার বই সমৃদ্ধ লাইব্রেরী। যাতে রয়েছে দেশী-বিদেশী প্রচুর সহায়ক বই।
  • শিক্ষার্থীদের তত্ত্বাবধানের জন্য গাইড শিক্ষক ব্যবস্থা।
  • বিনোদন ও ইনডোর গেমসের সুবিধা।
  • ধুমপান ও রাজনীতি মুক্ত ক্যাম্পাস।

MATS/DMF – পরিসংখ্যান

দেশে বর্তমান প্রায় ৫ হাজার সরকারী নিয়োগ প্রাপ্ত মেডিকেল এ্যাসিষ্ট্যান্ট DMF ডাক্তার আছে। সরকারী প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতিবছর ৩০০-৪০০জন পাশ করে বের হয়। অথচ DMF ডাক্তারের প্রয়োজন রয়েছে প্রায় ১০ হাজার। ২০০৮ সালের সরকার বিজ্ঞাপন দিয়েও চাহিদা অনুযায়ী DMF ডাক্তার পাওয়া যায়নি।

ম্যাট্‌পড়তে যে সমস্ত ল্যাবের প্রয়োজন

  • Anatomy Lab
  • Physiology Lab
  • Community Medicine Lab
  • Computer Lab
  • Pathology & Microbiology Lab
  • Pharmacology Lab

সার্টিফিকেট প্রদান 

MATS ৪বছর মেয়াদী একটি শিক্ষাক্রম। চুড়ান্তভাবে কৃতকার্য শিক্ষার্থীকে সাস্থ্য  ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ সার্টিফিকেট প্রদান করে থাকে। সরকারী প্রতিষ্ঠান থেকে পাশ করা DMF এবং RIMT থেকে পাশ করা ছাত্র-ছাত্রীগন একই সার্টিফিকেট পেয়ে থাকেন।

শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা

  • মোট আসনের ১৫% ছাত্রীদের জন্য আসন সংরক্ষিত।
  • ছাত্রীদের জন্য ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা ও Guidance এর ব্যবস্থা।
  • ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য নিরাপত্তা মূলক হোস্টেল ব্যবস্থা।

MATS এর কর্মক্ষেত্র 

শুধুমাত্র সরকারী ভাবে চাকুরীর পোষ্ট খালি রয়েছে ৯ হাজার এর উপরে

MATS কোর্স সম্পন্নকারীকে DMF সার্টিফিকেট প্রদান করে বাংলাদেশ রাষ্ট্রীয় চিকিৎসা অনুষদ। DMF, ডিগ্রি প্রাপ্তরা সহকারী ডাক্তার। প্রাপ্তরা সহকারী বলার কারন সরকারের পল্লী চিকিৎসক কার্যক্রম থেকে কিছু প্রাথমিক (Grass Root) পর্যায়ের চিকিৎসক শ্রেণী গ্রামের বিভিন্ন মহল্লায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। DMF ডিগ্রি প্রাপ্তরা বহু ভাবে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে থাকে সরকারের সাস্থ্য অধিদপ্তর এবং পরিবার পরিকল্পনা মন্ত্রনালয় অধীনে উপজেলা সাস্থ্য কেন্দ্রে, বিভিন্ন সাস্থ্য উপ-কেন্দ্রে, ইউনিয়ন সাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে, স্কুল হেলথ ক্লিনিক, বিভিন্ন আধাসরকারী/কর্পোরেশন- যেমন- তিতাস গ্যাস, বি,আই,ডব্লিউ, টি,সি, বিজি প্রেস, বাংলাদেশে বিমান ইত্যাদি ছাড়াও বিভিন্ন এনজিও প্রতিষ্ঠানে যেমন-ব্রাক, গনসাস্থ্য, কেয়ার, গণসাহায্যে সংস্থা, আই সি ডিডিআরবি, Save the Children (USA)/(UK), ইহা ছাড়াও দেশী বিদেশী নানা প্রতিষ্ঠানে DMF ডিগ্রি প্রাপ্তগন নিয়োগ পেয়ে থাকে। ভবিষ্যতে আরও নতুন কর্মক্ষেত্র তৈরী হবে। কিন্তু প্রশ্ন হলো বর্তমানে শুধু সরকারী পর্যায়ে নিয়োগ দেওয়ার জন্য যথেষ্ট সংখ্যক DMF ডিগ্রিধারী না থাকায় বার বার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েও আসন খালি থেকে যাচ্ছে। এই সমস্যা সমাধানের জন্যই সরকার বেশী সংখ্যক DMF ধারী ডাক্তার তৈরীর জন্য বেসরকারী পর্যায়ে শিক্ষা দেওয়ার ব্যবস্থা শুরু করেছে। বলতে গেলে বর্তমানে এবং সামনে আরও ৭/৮ বৎসর একহাতে DMF সার্টিফিকেট এবং অন্য হাতে চাকুরীর সুযোগ রয়েছে। আবার চাকুরী না করলেও একজন DMF ডাক্তার প্রাইভেট প্রাকটিশনার হিসাবে শহরে বন্দরে কিংবা গ্রামে ডাক্তারী করে মাসে ভালো পরিমান অর্থ রোজগার করতে পারবে যাহা একটা ভালো চাকুরীর চেয়ে কোন অংশে কম নয়।সরকারী চাকুরীতে DMF -দের Sub-Assistant Community Medical officer বা উপ-সহকারী চিকিৎসা কর্মকর্তা অথবা Medical Assistant হিসাবে এবং বেসরকারী ক্ষেত্রে নানাবিধ পদে চাকুরীতে নিয়োগ দেওয়া হয়। এক কথায় কোর্স সম্পন্ন করলে ১০০% নিশ্চিত চাকুরী অথবা আত্ম কর্মসংস্থানের সুযোগ রয়েছে।